news | logo

১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ৩০শে জুলাই, ২০২১ ইং



চারিদিকে ঢাকের শব্দ, অশুভ শক্তি হবে জব্দ!

প্রকাশিত : অক্টোবর ০৬, ২০১৯, ০০:০২

চারিদিকে ঢাকের শব্দ, অশুভ শক্তি হবে জব্দ!

দুর্গোৎসব আগত, আমরা জানাই স্বাগতঃ যথারীতি অন্যান্য বারের মতো এবারও মহা ধুমধামের মধ্যে শুরু হয়েছে সনাতন ধর্মে বিশ্বাসী (হিন্দু) সম্প্রদায়ের বছরের সবচেয়ে বড় উৎসব দূর্গাপূজা। মূল উৎসব পাঁচ দিনের হলেও আয়োজন শুরু এক মাস আগে থেকেই। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত। পৃথিবীর একমাত্র হিন্দু দেশ। সেখানে দীর্ঘ দুই মাস পর্যন্ত চলে আনন্দের বন্যা। এ আনন্দ উপলক্ষ্যে পৃথিবীর শতাধিক দেশ থেকে আসে পর্যটক। আনন্দের হিল্লোল বয়ে যায়। দিবস রজনী খোলা থাকে দোকানপাট। বেচাকেনা ধুম পড়ে যায়। যদিও আমাদের দেশে এতোটা আনন্দ হয় না। আমাদের দেশে শতকরা দশ জন হিন্দু হলেও তাদের মনে থাকে শতভাগ আনন্দ, উচ্ছাস ও উদ্দীপনা।
পৃথিবীর সবচাইতে ধর্মীয় সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির দেশ বাংলাদেশ। আমরা একই মাঠে খেলি, একই ঘাটে গোসল করি, একই প্রাসাদে বসবাস করে একই বাসনে প্রসাদ খাই।
আবার তেমনি তাবৎ দুনিয়ার ঘৃণিত দেশ আমাদের পাশ্ববর্তী আরেক দেশ বার্মা। বার্মার বর্তমান নাম মায়ানমার। মায়ানমারের অর্থ যা হোক না কেন তারা বুঝিয়ে দিয়েছে জগতবাসীকে ‘এ নামের অর্থ মানুষ মার’। মুসলমানদের হত্যা পশুত্ব, বর্বরতা ও হিংস্রতার ষোলকলা পূর্ণ করে বিশ্বাবাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। দশলাখ মুসলিমকে গৃহহারা, সর্বহারা করে আমাদের দেশে পাঠিয়ে দিয়েছে। বর্বরতার মাত্রা এতই ভয়াবহ ছিল যে, অংসন সুচীর নোবেল পুরস্কার কেড়ে নেয়া হয়েছে, অক্সফোর্ডের সনদপত্র বাতিল করা হয়েছে।
আমরা পাশের দেশ অথচ সমুচিত শিক্ষা দেবার ক্ষমতা থাকার পরেও ফুঁস করে উঠিনি। আমাদের গায়ে হিং¯্রতার বিন্দুমাত্র ছিটেফোটাও লাগেনি। আমাদের ধর্মগ্রন্থ পবিত্র কুরআনে আল্লাহ বলেন, “কেউ যদি তোমার আল্লাহকে বাদ দিয়ে তার দেবদেবীর এবাদত করে; সাবধান অন্য ধর্মের দেবদেবীকে গালি দিও না”।
অন্য ধর্মের প্রতি এতো বড় সম্মান দুনিয়ার অন্য কোন ধর্মে হুশিয়ারী দেওয়া হয়নি। পবিত্র কুরআনে বিভিন্ন স্থানে হুশিয়ারী দেওয়া হয়েছে যেন “কোন ভাবেই অন্য ধর্মকে হেও করা না হয়”। ধর্ম হলো পরিপূর্ণ বিশ্বাস ও অন্ত:করণের সাথে পালন করা।
আমরা চাই যে কোন মানুষ অন্তত একটা ধর্মের প্রতি অনুগত থাকুক। কারণ, প্রত্যেক ধর্মেই বলা হয়েছে ‘চুরি করা, মিথ্যা বলা’ মহাপাপ। কারো জিনিস আত্মসাৎ করো না, ব্যাভিচার করো না। সব ধর্মেই বলা হয়েছে, ‘হত্যা করা মহাপাপ, ঘৃণিত’। বলা হয়েছে “পীড়িত কে সেবা করো, অভাবীদের দান করো”। দুঃস্থদের পাশে দাঁড়াও ও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দাও। যে ধর্মেরই অনুসারী হোক, সে যদি আল্লাহকে বিশ্বাস আর ভয় করে, তবে আর যা হোক তার পক্ষে খারাপ কিছু করা সম্ভব নয়।
আসুন বন্ধুরা আমরা ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে গরীব দুঃখীর পাশে গিয়ে দাঁড়াই। অতি পীড়িতদের সেবায় এগিয়ে যাই। আল্লাহ পাক রাব্বুল আল আমিনের লক্ষ কোটি সৃষ্টির মধ্যে আমরা মানুষজাতি সর্বশ্রেষ্ঠ জাতি। যদি আমরা আমাদের আচার-ব্যবহার, লেনদেন, ধৈর্য্য ও সহিঞ্চুতার মধ্য দিয়ে আমাদের শ্রেষ্ঠত্বকে বজায় রাখতে না পারি, তবে তা হবে আমাদের জন্য চরম পরাজয় ও ব্যর্থতা।
সাপ্তাহিক আগামীর প্রত্যাশার অগনিত পাঠকের জন্য থাকলো শারদ শুভেচ্ছা। আপনাদের মঙ্গল কামনা করি নিরন্তর। -সম্পাদক




সম্পাদক ও প্রকাশক : মি. আহমেদ

অফিস লোকেশন:

১১০, গোয়ালবাড়ী, কাফরুল

মিরপুর-১৪, ঢাকা-১২০৬।

ফোন: ০১৯২২২৭৭৭৪৭ নিউজরুম: ০১৯২২২৭৭৭৩২

ই-মেইল: sales@bdwebs.com